গেমিং করার সময় কম্পিউটারে সৃষ্ট সমস্যা এবং তার সমাধান || দ্বিতীয় পার্ট - Tricks Bangla

Tricks Bangla

Read Write and Share your Knowledge || #1 Bangladeshi mobile and desktop based tech forum and community.

Breaking

Thursday, April 2, 2020

গেমিং করার সময় কম্পিউটারে সৃষ্ট সমস্যা এবং তার সমাধান || দ্বিতীয় পার্ট

গেমিং করার সময়ই আমরা মাঝে মাঝে Poor FPS অথবা late response time দেখে থাকি।এর কারণ আসলে অনেকে bottleneck বললেও মূলত বিষয়টা এমন নয়।

PC gaming

Bottleneck বিষয়টা আমি ধারণা দিচ্ছিঃ ধরি,একটি গাড়িতে আপনি accelerator চেপে ধরেছেন, আর এতে Engine প্রচুর আওয়াজ করে গতি বাড়ানোর চেষ্টা করছে। কিন্তু,আপনার Fuel tank এর piston খুবই সরু, আর এর ফলে এতো ভালো Engine হওয়ার পরও, গাড়ির গতি বাড়ছে না; সোজা কথায়, পরিমাণমতো Fuel যদি Engine এ যেতে পারে, তখনই Engine এর সর্বচ্চো শক্তি এখানে ব্যবহার করবে।

কিন্তু আপনি যদি জেনে থাকেন যে,আপনার পিসির CPU ও GPU bottleneck ছিলই না, তবে বিষয়টা গুরুতর। যদি দেখেন যে, আপনার GPU usage প্রায় গেমেই খুব কম, আর আপনি জানেন যে এটি bottleneck নয়। (Ins:RX5700 with R5 3600), তাহলে আপনাকে Windows defender থেকে দূরে চলে আসতে হবে, এবং অন্য কোনো ভালো Anti-Malware এর দিকে ঝুঁকতে হবে।

কারণ,আপনার GPU টি যেকোনো ভাবে Mining virus দ্বারা আক্রান্ত হয়েছে। আর এতে আক্রান্ত হলে আপনি যতই GPU driver install, reinstall করুন না কেন, কোনো পরিত্রাণ আসবে না। সুতরাং, আপনি আপনার system partition drive C scan করে দেখতে পারেন আদোও এমন virus আছে কিনা। এক্ষেত্রে windows defender কিছুই করতে পারে না। সুতরাং, Malwarebytes, ESET nod internet security, এসব ব্যবহার করার জন্য suggest করা হলো।

এরপরও যদি performance না পরিবর্তন হয়,তবে আপনাকে Ram upgrade করতে হবে। (Again,u will be getting 100% of performance boost once u are done with the mining viruses), এখানে Ryzen series হলে Ram matter হবে। (আমার আগের পোষ্টে এই নিয়ে উল্লেখ্য রয়েছে)। পরবর্তীতে, আপনি যা করতে পারেন সেটা হলো Dual channel Ram ব্যবহার করা। এক্ষেত্রে Ryzen এর সব CPU ই এগিয়ে আছে Against using a single slot single channel ram.

এরপরও গেমিং boost দরকার হলে আপনাকে দেখতে হবে Os এর কিছু ভিতরের খুটিনাটি। যেমনঃ High precision event timer(HPET) System Driver টি যদি আপনি device manager থেকে disable করে দেন, তবে সামান্য performance boost হবে। আর Ryzen series এর SMT(Simultaneous Multi Threading) option টি bios অথবা Ryzen master utility থেকে disable করে দিলেও CPU bottleneck কমে আসবে।

তবে গেমিং শেষে যেকোনো workstation/Multitasking এর জন্য আবার SMT enable করে ফেলতে হবে। (SMT only enables the CCX2 Cores in AMD CPU series. So, disabling it will decrease the logical cores with physical cores to half)

tricks-bangla.xyz

আরেকটি বিষয় হচ্ছে, আপনার GPU এর power usage দেখা। কারণ, GPU কম power পেলে বা Cable এ ত্রুটি থাকলেও এমন হয়। তাই, উচিত হবে GPU PCIe-x16Gen 3 এ ভালোমতো attached হয়েছে কিনা আর cable ঠিকাছে কিনা তা লক্ষ্য করা।

এক্ষেত্রে Non moduler PSU user হলে আপনাকে warranty claim করতে হবে যদি কোনো physical harm না হয়ে থাকে তো। গেমিং এ যেন কোনো সমস্যা না হয়, সেক্ষেত্রে system managed page file add করতে পারেন, আর SSD user হলে এখান থেকে দূরে থাকাই ভালো। SSD এর speed তুলনামূলক কম করে দিতে অনেকসময় এই page file এর mess ই দায়ী। আর প্রতি মাসে একবার হলেও PC পরিষ্কার রাখার চেষ্টা করবেন। কেননা, আপনি CPU, GPU এর Temperature monitor করলেও, casing এর mobo vrm temp monitor করছেন না।

সুতরাং, high temp VRAM can also affect the whole rig.


কিছু tips দেওয়া হলো গেমিং এ সর্বচ্চো Performance নিশ্চিত করার জন্যঃ

১.1080p monitor use করাঃ বেশিরভাগ GPU 1080p optimistic. তাই, lower resolution এ High end এর GPU use করলে আপনি poor FPS পাবেন। আর যারা entry level এ use করছেন, তারাও 1080p (1920x1080) তে গেমিং settings up down করে mixed করে দেখতে পারেন। (Nvidia users: Get the optimistic settings via Geforce experience)

২.Thermal Paste: PC usage যদি ১ বছর হয়ে যায়, আর যদি performance এ কমতি নজর আসে, তবে বুঝতে হবে CPU temp ই কিছু করছে। এতে আরেকবার monitor করে temp check করতে পারেন। আর, যদি temp বেশি হয়, তবে আপনাকে অবশ্যই thermal paste change করতে হবে।

৩.Bios tweak: Bios থেকে PCIe-express সর্বদাই auto থেকে max gen এ দিয়ে রাখবেন। এখন gen 3 পর্যন্ত রয়েছে যদিও Ryzen 3rd gen ; gen 4 support করে।

৪.Temporary file: Cache, Temporary আর prefetch file গুলো delete করে দেওয়া। অনেকসময় PC slow হওয়ার পেছনে এগুলো যেমন দায়ী থাকে, তেমনি গেমিং এও একইভাবে প্রভাব ফেলে।

৫.OverClock: Ryzen CPU হলে আপনি OC করে কিছুটা boost পেতে পারেন। তবে GPU এর ক্ষেত্রে OC করলে যে পরিমাণ performance boost হয়, CPU এর বেলায় তা হয় না। তবে, GPU OC করার সময় খেয়াল রাখবেন যেন Screen pixelated বা shred না হয়ে যায়। যদি হয়, তবে সাথে সাথেই core clock কমিয়ে আনতে হবে।

Extra bias tips:

1.GPU power %:MSI after burner দিয়ে আপনি আপনার GPU power usage unlock এবং maximum করতে পারবেন। এতে 5~6FPS boost হবে। আর Power limitation GPU থেকে GPU এ ভিন্ন হয়ে থাকে।

2.Ram OC: Ram OC করাটা বোকামো হবে তা কিন্তু নয়। আর যদি Ram stable না হয়, তবে চিন্তার বিষয় নেই। আপনি সর্বনিম্ন 1.35V এ 3000MHz পর্যন্ত যেকোনো Certified DDR4 Ram OC করতে পারবেন। আর যদি oc করতে সমস্যা হয়, তবে নিচে উল্লেখ করতে পারেন।

3.Unwanted Drivers: যেসব driver pc তে দরকার হয় না, সেগুলো uninstall করতে পারেন। তবে এক্ষেত্রে Software এর সাহায্য নেওয়া ঠিক হবে।

4.Nvidia Control Panel: এখানে আপনি কিছু Option change করতে পারেন। মূলত এখান থেকেই আপনি আপনার GPU control করতে পারবেন। অর্থাৎ এটি কীভাবে কি কাজ করবে। এখানে যা যা change আপনি করতে পারেন নতুন driver install করার পর।

1/FXAA: Off
2/CUDA GPU: All
3/MFAA: off(enable it to gain some performance. But u would see some image or texture blurring)
4/Power Management mode: Prefer Max. performance
5/Shared Cache: Turn this off only for GTA V.(Keep it on, suggested)
6/Texture Filtering quality: High Performance
7.Threaded optimization :Keep it on or simply auto.

আশা করি এগুলো কোনোভাবে কাউকে সাহায্য হলেও করতে পারে যদিও সবাই এখন অনেক কিছুই বুঝি।

ধন্যবাদ সবাইকে সাথে থাকার জন্য। Stay Home, Be Safe

No comments:

Post a Comment